এই মুহূর্তে কলকাতা

এবার রাজ্যসংগীত বাধ্যতামূলক সব সরকারি অনুষ্ঠানে।


কলকাতা, ৩১ ডিসেম্বর:- রাজ্য সরকারের সমস্ত অনুষ্ঠান, কর্মসূচির শুরুতে বাধ্যতামূলক ভাবে ‘রাজ্য সঙ্গীত’ গাইতেই হবে । একই সঙ্গে প্রতি বছর পয়লা বৈশাখ ‘শ্রদ্ধা এবং মর্যাদা’-র সঙ্গে ‘রাজ্য দিবস’ পালনের জন্য রাজ্য সরকার নির্দেশিকা জারি করেছে। সেই নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, সম্মানের সঙ্গে প্রতি বছর ‘রাজ্য দিবস’ পালন করবেন সকল পশ্চিমবঙ্গবাসী। রাজ্য সরকারের সমস্ত অনুষ্ঠান, কর্মসূচির শুরুতে ১ মিনিট ৫৯ সেকেন্ড ধরে গাইতে হবে ‘রাজ্য সঙ্গীত’। একই সঙ্গে সেই অনুষ্ঠানের শেষে গাইতে হবে জাতীয় সঙ্গীত। পাশাপাশি, এই দুই গান উঠে দাঁড়িয়ে উপস্থিত সকলকে গাওয়ার কথাও বলা হয়েছে। উল্লেখ্য চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে রাজ্য বিধানসভায় রাজ্য সঙ্গীত এবং রাজ্য দিবস পালনের বিষয়ে একটি প্রস্তাব গৃহীত হয়। তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজ রাজ্যের মুখ্যসচিবের তরফে একটি নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে একাধিক অনুষ্ঠানে রাজ্য গান গেয়েছেন। স্পেনে শিল্প সম্মেলনে গিয়েও রাজ্য সঙ্গীত গান মুখ্যমন্ত্রী। সম্প্রতি ২৯তম চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনেও গাওয়া হয় গানটি। ‘বাংলার মাটি বাংলার জল’-এ গলা মেলান খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উঠে দাঁড়ালেন সলমন খান, অনিল কাপুর, মহেশ ভাট, শত্রুঘ্ন সিনহা, সোনাক্ষী সিনহা, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের মতো তারকারা। এবার সরকারিভাবে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বাংলার মাটিকে রাজ্য সঙ্গীত হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়া হল। রাজ্য সঙ্গীতের ক্ষেত্রে নির্দেশিকা, রাজ্য সরকারের সমস্ত অনুষ্ঠান, কর্মসূচির শুরুতে এক মিনিট ৫৯ সেকেন্ড ধরে গাইতে হবে ‘রাজ্য সঙ্গীত’। এবং অনুষ্ঠানের শেষে গাইতে হবে জাতীয় সঙ্গীত। এই দুই গান উঠে দাঁড়িয়ে উপস্থিত সকলকে গাওয়ার কথাও বলা হয়েছে। উল্লেখ্য, এদিনই রাজ্যের মুখ্যসচিব পদে হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীর শেষ কাজের দিন। তার আগে গতকালই তিনি এই দুটি বিষয়ে অর্থাৎ ‘রাজ্য দিবস’ এবং ‘রাজ্য সঙ্গীত’ নিয়ে নির্দেশিকা জারি করে দিয়েছেন।