এই মুহূর্তে কলকাতা

১০০ দিনের প্রকল্প খতিয়ে দেখতে রাজ্যে আসছে ১২টি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল।


কলকাতা, ১৯ জানুয়ারি:- টাকা না দিলেও পরিদর্শক দল পাঠানোর কমতি নেই। এবার বাংলায় ১০০ দিনের কাজের প্রকল্প খতিয়ে দেখতে আসছে ১২টি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। তাঁরা রাজ্যের ১২টি জেলায় গিয়ে ১০০ দিনের কাজের প্রকল্পে কী কী কাজ হয়েছে, সেই সব কাজে যথাযথ জবকার্ডদারীরাই কাজ পেয়েছেন কিনা, দুর্নীতির কোনও ঘটনা ঘটেছে কিনা এসবই খতিয়ে দেখবেন। ঘটনা হল, কেন্দ্র সরকার দেশের প্রায় সব রাজ্যের ১০০ দিনের কাজের প্রকল্পের টাকা আটকে রেখেছে। সেই টাকার মধ্যে ৬০ শতাংশ টাকাই বাংলার প্রাপ্য যার পরিমাণ ৬ হাজার কোটি টাকারও বেশি। সেই টাকা চেয়ে বার বার কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই টাকা যে আর বেশিদিন আটকে রাখা যাবে না সেটা বুঝেই এবার এই প্রকল্পের টাকা ছাড়ার আগে বাংলায় কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল পাঠিয়ে গোটা বিষয়টি থেকে নজর ও অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে প্রশাসনিক মহলের একাংশ মনে করছে।

দিন কয়েক আগেই বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী হুমকি দিয়েছিলেন যে বাংলায় আবারও কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল পাঠানো হবে ১০০ দিনের কাজের প্রকল্পে নজরদারি করতে। সেই কথাই সত্যি করে বাংলায় প্রতিনিধি দল পাঠাচ্ছে মোদি সরকার ১০০ দিনের কাজের প্রকল্প খতিয়ে দেখতে। তৃণমূল কংগ্রেসের নেতারা বারবার বিজেপির ছোট, বড়, কুচো নেতাদের কেন্দ্রীয় বিভিন্ন এজেন্সিকে নিয়ন্ত্রণের অভিযোগে সরব হয়েছেন। এই ঘটনা ওই অভিযোগ কেই মান্যতা দিল বলে মনে করা হচ্ছে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে এই সব অভিযোগ তুলে ধরে মোদি সরকার কতদিনই বা সেই টাকা আটকে রাখতে পারবে! কেননা এই প্রকল্পের টাকা আটকে রাখার জন্য গ্রাম বাংলায় বিজেপির বিরুদ্ধে আমজনতার ক্ষোভ তুঙ্গে উঠেছে। সেই ক্ষোভ বড়সড় ঘূর্ণিঝড় হয়ে আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপির বিরুদ্ধেই আছড়ে পড়তে পারে বলে এখন আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সেই খবর বিজেপির শীর্ষস্তর অবধি পৌঁছেছে। এই অবস্থায় এই ১২টি প্রতিনিধি দল পাঠিয়ে আদৌ কী কোনও সুবিধা করতে পারবে মোদি সরকার? এই প্রশ্নও কিন্তু এদিন উঠে গিয়েছে।