এই মুহূর্তে জেলা

চুঁচুড়ায় অপহরের চেষ্টার ঘটনায় দুষ্কৃতীরা এখনো অধরা, আহত ব্যবসায়ীকে দেখতে হসপিটালে বিধায়ক।


হুগলি, ১ এপ্রিল:- চুঁচুড়া পল্লীশ্রীর বাসিন্দা মৃনাল সাহার পোলবার সুগন্ধায় সুপারী প্রক্রিয়া করনের কারখানা রয়েছে। সেখান থেকে গতকাল তিনি বাড়ি ফিরছিলেন স্কুটার চালিয়ে। ব্যবসায়ীর অভিযোগ সুগন্ধার অমরপুরের কাছে তাকে আটকায় কয়েক জন বাইক আরোহী। আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে জোর করে তাদের বাইকে তোলার চেষ্টা করে। টানাটানির সময় রাস্তায় পরে গিয়ে পা ভাঙে ব্যবসায়ীর। তাকে ফেলে রেখে চম্পট দেয় অপহরনকারীরা। চুঁচুড়ার একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে ভর্তি হন ব্যবসায়ী। কি উদ্দেশ্যে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয় তা স্পস্ট নয় ব্যবসায়ীর কাছেও। তাকে ফোনে কোনো হুমকি দেওয়া বা টাকা চাওয়া হয়নি। পোলবা থানার পুলিশ সিসি টিভির ফুটেজ দেখে অভিযুক্তদের খোঁজ চালাচ্ছে।

আজ ব্যবসায়ীকে দেখতে নার্সিংহোমে যান চুঁচুড়ার বিধায়ক।তারপর ঘটনাস্থল অমরপুরেও যান। বিধায়ক দাবী করেন তার বিধানসভা এলাকায় দুষ্কৃতিদের দৌরাত্ম বন্ধ করেছেন তিনি। চন্দননগর পুলিশও দুষ্কৃতিদের বিরুদ্ধে কড়া অবস্থান নেওয়ায় সেই অর্থে অপরাধ আর হয়না চুঁচুড়ায়। বিধায়কের অভিযোগ বিজেপির লকেট চট্টোপাধ্যায় গুন্ডা মস্তানদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন। যে কারনে তারা উৎসাহ পাচ্ছে। কয়েক দিন আগে দুষ্কৃতিদের পক্ষ নিয়ে ব্যান্ডেল ফাঁড়িতে গিয়ে বিক্ষোভ দেখান। ব্যান্ডেলের এক পরিচিত দুষ্কৃতি ফোন করে কয়েকজনকে হুমকি দিয়েছে বলেও জানান বিধায়ক। সুপারী ব্যবসায়ীকে যারা অপহরন করতে এসেছিল তারা ধরা পরবে বলে জানান তিনি।