এই মুহূর্তে জেলা

ঠান্ডা ফ্রুটিতে গলা ভিজিয়ে খোয়া গেলো টাকা মোবাইল ফোন!


হুগলি, ১৯ মার্চ:- পানীয়ের সঙ্গে মাদক পান করিয়ে কেপমারি চন্দননগর হাসপাতালে!পরে গিয়ে মাথা ফাটল একজনের। হরিপালের সেখ মহঃ ওলিউল্লা, শ্রীমন্ত সিং ডানকুনির আউজুল মল্লিক। তিনজনেরই নিকট আত্মীয় ভর্তি চন্দননগর হাসপাতালে। অ্যানেক্স বিল্ডিং এর সামনে আরও অনেকের সঙ্গে তারা রাত জাগছিলেন। এক মধ্য বয়সী ব্যাক্তি এসে তাদের সঙ্গে ভাব জমায়। এরপর ফ্রুটি খেতে দেয়। তিনজনেই অল্প করে পানীয়তে চুমুক দেন। কয়েক মুহুর্তে প্রায় অচেতন হয়ে পরেন তিনজনই। সকালে ঘুম ভাঙলে দেখেন মোবাইল টাকা গায়েব। মহঃ ওলিউল্লা উঠে শৌচালয়ে গিয়ে মাথা ঘুরে পরে যান, মাথা ফেটে যায়।তার প্রাথমিক চিকিৎসা করানো হয় হাসপাতালেই।

মাদকের প্রভাব এতটাই উঠে দাঁড়াতে পারছেন না তিনজনই। মহঃ ওলিউল্লা বলেন,আমি রোজা করি। গত রাতে একজন বলল একটু জুস খান।খাওয়ার পর আর হুঁশ ছিলনা। সকালে উঠে মুখ ধুতে গিয়ে পরে যাই। মাথা ফেটে যায়। হাসপাতালে অনেক ধরনের মানুষ আসেন। কর্তৃপক্ষের নিরাপত্তা নিয়ে ভাবা দরকার। রোগির পরিজনদের অভিযোগ এর আগেও এধরনের কেপমারির ঘটনা ঘটেছে। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে সিসি ক্যামেরা থাকলেও অ্যানেক্স বিল্ডিং নতুন হওয়ায় সেখানে সিসি ক্যামেরা বসানো হয়নি। হাসপাতালে প্রবেশ দ্বারেও নেই সিসি ক্যামেরা নিরাপত্তারক্ষী। রোগির পরিজন যারা রাতে থাকেন তাদের বার বার বলা হয় অপরিচিত কারো থেকে কিছু না খেতে তারপরেপ এই ধরনের ঘটনা ঘটছে।