এই মুহূর্তে জেলা

পঞ্চায়েত ভোটের আগে বিজেপি নেতা খুনে অগ্নিগর্ভ ময়না।


পূর্ব মেদিনীপুর, ২ মে:- পঞ্চায়েত ভোটের আগে ময়নায় বিজেপি নেতা খুন।এছাড়াও সঞ্জয় তাঁতি নামে আরেক বিজেপি কর্মী কে অপহরণ করে অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে ।পূর্ব মেদিনীপুরের ময়নায় বিজেপি নেতা খুন। গতকাল রাতেই থানার সামনে বিক্ষোভ শুরু করে বিজেপি। আজ দিনভর বিক্ষোভ দেখাবে বিজেপি। সকালে থেকেই শুরু হয়েছে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ। তৃতীয় তৃণমূল সরকারের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তির দিনই ফের রাজ্যে এক বিজেপি নেতাকে অপহরণ করে খুনের অভিযোগ উঠল। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল পূর্ব মেদিনীপুরের ময়না। সরাসরি তৃণমূলের আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে দলীয় কর্মীকে খুনের অভিযোগে সরব হয়েছেন ময়নার বিজেপি বিধায়ক অশোক দিন্দা। খুনের প্রতিবাদ এবং দোষীদের গ্রেফতারের দাবিতে এদিন সকাল থেকে ময়নায় পথ অবরোধ শুরু করেছে বিজেপি৷

এক বিজেপি কর্মীকে খুনের অভিযোগকে কেন্দ্র করে সোমবার রাতে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ময়নার বাকচা এলাকা। অভিযোগ, গতকাল রাতে বাড়ির সামনেই বিজেপি-র বুথ সভাপতি বিজয়কৃষ্ণ ভুইঞাকে তাঁর স্ত্রী এবং ছেলের সামনেই মারধর করতে শুরু করে বাকচা তৃণমূল অঞ্চল সভাপতি মনেরঞ্জন হাজরা এবং তার দলবল। অভিযোগ, মারধরের সময় এলাকার বাসিন্দারা জড়ো হয়ে গেলে অস্ত্র দেখিয়ে ওই বিজেপি নেতাকে তুলে নিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। অপহৃত বিজেপি নেতাকে উদ্ধারের দাবিতে ময়না থানার সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। এর পর রাতে বাড়ি থেকে কিছুটা দূরেই উদ্ধার হয় বিজেপি নেতার দেহ।এই খবর ছড়িয়ে পড়া মাত্র ক্ষোভে ফেটে পড়েন বিজেপি নেতা-কর্মীরা। থানার সামনে বিক্ষোভে যোগ দেন ময়নার বিজেপি বিধায়ক অশোক দিন্দা।

তিনি অভিযোগ করেন, আমাদের বুথ সভাপতি পুরনো বাড়ি থেকে নতুন বাড়িতে যাচ্ছিলেন। তখনই মনোরঞ্জন হাজরার নেতৃত্বে তৃণমূলের হার্মাদরা দলবল নিয়ে তাঁর উপরে হামলা করা হয়। পাড়ার লোকরা বাঁচাতে গেলে বন্দুক দেখিয়ে, বোমা মেরে বিজয়দাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। আমরা থানা, ওসি, এসপি-কে ঘটনার কথা জানাই। এখন শুনছি তাঁর দেহ উদ্ধার হয়েছে। অথচ কাউকে কিছু না জানিয়েই পুলিশ দেহ তমলুক হাসপাতালে পাঠিয়ে দিয়েছে। যদিও এই ঘটনার সঙ্গে শাসক দল কোনওভাবে জড়িত নয় বলে দাবি করেছেন ময়নার প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক সংগ্রাম দলুই। তাঁর দাবি দোকান অথবা পারিবারিক কোনও বিবাদের কারণেই ওই বিজেপি নেতাকে খুন করা হয়েছে।