এই মুহূর্তে জেলা

গঙ্গাসাগরে উদ্ধারকাজে নামানো হচ্ছে ভারত সেবাশ্রম সংঘের প্রায় দেড় হাজার স্বেচ্ছাসেবককে।


হাওড়া, ১৩ জানুয়ারি:- আর একদিন পরেই গঙ্গাসাগরে মকর সংক্রান্তির পুণ্যস্নান। তাই হাজার হাজার ভক্ত ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছেন গঙ্গাসাগরে। এই তীর্থযাত্রীদের সহযোগিতায় ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের উদ্যোগে গঙ্গাসাগরের পাঁচটি পয়েন্টে এমনকি সাগরের জলে উদ্ধারকাজের জন্যে প্রায় দেড় হাজার স্বেচ্ছাসেবককে নিয়োগ করা হয়েছে। গঙ্গাসাগরে ভারত সেবাশ্রমের এই সেবাকাজের সূচনা করেন সঙ্ঘের প্রধান সম্পাদক স্বামী বিশ্বাত্মানন্দ মহারাজ। এর পাশাপাশি তিনি গঙ্গাসাগরের পথে কচুবেড়িয়া ফেরিঘাট সংলগ্ন এলাকায় ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের প্রতিষ্ঠাতা স্বামী প্রনবানন্দ মহারাজের আবক্ষ মূর্তিরও পুনপ্রতিষ্ঠা করেন।

উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের সুন্দরবন উন্নয়ন মন্ত্রী বঙ্কিম হাজরা সহ বহু বিশিষ্ট মানুষ। ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের প্রধান সম্পাদক স্বামী বিশ্বাত্মানন্দ মহারাজ বলেন, হাজার বছরের পরাধীন ভারতবর্ষকে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্তি দিতে মানুষের মধ্যে মহা জাগরণ এনেছিলেন স্বামী প্রনবানন্দ মহারাজ। আজকের সময়ে দাঁড়িয়েও মানুষকে স্বামী প্রনবানন্দের আদর্শে এগিয়ে চলতে হবে পরস্পরকে সেবার মানসিকতা নিয়ে। মন্ত্রী বঙ্কিম হাজরা বলেন, গঙ্গাসাগর মেলা বা অন্য যে কোনো কাজে সেবার মানসিকতা নিয়ে সবার আগে ঝাঁপিয়ে পড়ে ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘ। সঙ্ঘের প্রতিষ্ঠাতার এই মূর্তি উন্মোচন হল যাতে স্বামী প্রনবানন্দের আদর্শকে সকলের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়া যায়।