এই মুহূর্তে জেলা

চাহিদা কম, বায়না আসছে না। মাথায় হাত আন্দুল প্রশস্ত’র মৃৎশিল্পীদের।

হাওড়া, ১৪ সেপ্টেম্বর:- চাহিদা কম, বায়না আসছে না। মাথায় হাত আন্দুল প্রশস্ত’র মৃৎশিল্পীদের। গত বছর লকডাউনের পর থেকেই ব্যবসায় মন্দা চলছিল। ক্লাবগুলো পুজোর বাজেট কাটছাঁট করায় ঠাকুর গড়েও দাম পাচ্ছিলেন না মৃৎশিল্পীরা। সেই মন্দার জের এখনও কাটেনি। হাওড়ার আন্দুলের প্রশস্ত’র প্রতিমা শিল্পীদের তাই এখন মাথায় হাত। চলতি সপ্তাহেই বিশ্বকর্মা পুজো। শেষ পর্যায়ের প্রস্তুতি চলছে। কারিগর না থাকায় সমস্যায় পড়েছেন প্রতিমা শিল্পীরা। প্রতিমা তৈরি করা থাকলেও নেই কোন অর্ডার। হাওড়াকে এক সময় বলা হতো শিল্পনগরী। এখন সেখানেই বন্ধ রয়েছে বহু কলকারখানা। তাই পুজোর আগে বিশ্বকর্মা পুজোতেও ঠাকুরের চাহিদা খুবই কম। করোনা আবহে বহু কল-কারখানায় বিশ্বকর্মা পুজো নমো নমো করে সারছেন অনেকে। অনেক কারখানায় ঘট পুজো হচ্ছে। তাই সেই তুলনায় বিশ্বকর্মা ঠাকুরের চাহিদাও খুবই কম। দুর্গাপ্রতিমার বায়নাও এবার কম। ঠাকুর বানানোর কারিগরও কম। মাটির জোগান নেই। গ্রাম অঞ্চল থেকে প্রতিমা শিল্পী নিয়ে এসে বিভিন্ন মডেলের প্রতিমা বানাতে হচ্ছে। সব মিলিয়ে যা পরিস্থিতি তা কাটতে সময় লাগবে আরও অনেক দিন। ২ বছর আগেও যে পরিমাণে চাহিদা ছিল প্রতিমার করোনা আবহে সেই চাহিদা খুবই কম।