এই মুহূর্তে জেলা

করোনার কারণে দিলীপ ঘোষের লোকসভায় এখনোও অন্নপ্রাশণই হয়নি – কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

হুগলি , ১৩ ডিসেম্বর:- আমি কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠি লিখতে পারি কি না পারি সেটা দিলীপ ঘোষ জানবে কি করে। ওতো খালি জানে গোয়ালঘর আর গরুর বাটে কতটা সোনা আছে এই তো ওর বুদ্ধি ও কি করে জানবে, আমি চিঠি লিখতে পারি কিনা। এইভাবে আজ শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ ব্যানার্জি বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন। দিলীপ এম,পি হয়েছে তো কি হয়েছে কিন্তু পার্লামেন্টের কি কাজকর্ম পার্লামেন্টের কতটা পরিধি তার কিছু জ্ঞান নেই তার। তাছাড়া করোনার কারণে ওর তো লোকসভায় এখনো তো অন্নপ্রাশন হয়নি ও জানবে কি করে আমি কি করতে পারি বা না পারি। এখন করোনার কারণে যেহেতু পার্লামেন্ট বন্ধ তাই আমি চিঠি লিখেছি সেটা আমার অধিকারের মধ্যে পড়ে। আমি আইনজীবী হিসেবে কতটা যোগ্য তা তাদের দলের মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ এর কাছ থেকে জেনে নিতে পারে,

কারণ রবিশঙ্কর প্রসাদ ২০১৮ সালে আমার এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানিয়েছিলেন কল্যাণ ব্যানার্জি হচ্ছে দেশের মধ্যে অন্যতম একজন রাজনীতিবিদ এবং আইনজ্ঞ, এছাড়াও সাতবার বিভিন্ন ব্যাপারে পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে আমার প্রশংসা করেছেন মন্ত্রী। তা দিলীপ ঘোষ কি করে জানবে সে কথা। ২০১৮ সালের আগে প্রথম প্রবর্তক হিসেবে এখানে সেখানে ঘুরে বেড়াতো, তাই বাংলার বিষয়ে ওর কোন জ্ঞানই নেই। আমি তিনবারের এমপি একবারের বিধায়ক, আর ও কিনা আমার সম্বন্ধে কথা বলছে। নিজের দলের মধ্যেই দিলীপ ঘোষ পাত্তা পায়না। ও একটা দলের বোঝা। ওর সম্বন্ধে আমি আর নতুন করে কি বলব। কল্যান বাবু এদিন পরিষ্কার করে বলে দেন যে রাজ্যে উত্তরপ্রদেশ মধ্যপ্রদেশ থেকে যত গুন্ডাই নিয়ে এসো যত প্ররোচনা দাও এখানে কোনদিনই বিজেপি ক্ষমতায় আসবে না। যতই বর্গী এলো দেশে এলেও তৃণমূলকে কেউ পশ্চিমবঙ্গ থেকে সরাতে পারবেনা।