এই মুহূর্তে কলকাতা

ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও চিকিৎসা খাতে ৮১৫ কোটি টাকা বরাদ্দ রাজ্যের।

কলকাতা, ২৩ মার্চ:- আসন্ন বর্ষার মরশুমে ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও রোগীদের চিকিৎসা খাতে রাজ্য সরকার ৮১৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে। গ্রাম এবং শহরাঞ্চলে বাড়ি বাড়ি গিয়ে মশার লার্ভা মারা এবং সচেতনতা প্রচারের জন্য এক লক্ষ ৩২ হাজার কর্মীকে নিয়োগ করা হয়েছে। প্রতিটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ১৫ সদস্যের একটি করে দলকে এই কাজে নিযুক্ত করা হচ্ছে। আধা শহর এবং শহরাঞ্চলে আরো বেশি সংখ্যক কর্মীকে এই কাজে নিযুক্ত করা হবে। তাদের সকলকে সরকারি পরিচয় পত্র দেওয়া হবে। সাড়ে আট হাজার চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্য কর্মীকে ডেঙ্গু চিকিৎসার প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। চলতি মাস থেকেই শহর অঞ্চলে ডেঙ্গু প্রতিরোধে কাজ শুরু হয়েছে। যা চলবে আগামী ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত। গ্রামাঞ্চলে সারা বছরই ডেঙ্গু মোকাবিলায় কাজ চলবে।আগামী আর্থিক বছরের রাজ্যে ডেঙ্গু মোকাবিলার কৌশল নির্ধারণ করতে বৃহস্পতিবার মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীর পৌরহিত্যে এক উচ্চপর্যায়ের বৈঠক বসে।

ওই বৈঠকে স্বরাষ্ট্র সচিব ভগবতী প্রসাদ গোপালিকা, অর্থ সচিব মনোজ পন্থ, স্বাস্থ্য সচিব নারায়ণ স্বরূপ নিগম সহ ডেঙ্গু মোকাবিলার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ষোলটি দফতরের সচিব এবং সব জেলার জেলাশাসকেরা উপস্থিত ছিলেন। সেই বৈঠকে এই সমস্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছে। আরও ৬০ টি সরকারি এবং পুর হাসপাতালে ডেঙ্গু পরীক্ষা কেন্দ্র খোলা হবে বলেও বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মোট ১৫০০ কিলোমিটার খাল ও নালা সপ্তাহে দুবার করে পরিষ্কার করা হবে। প্রাক বর্ষার মরশুমে বন্ধ কল কারখানা, সরকারি অফিস, বাস ডিপো, পরিত্যক্ত জমি এবং আবর্জনা ফেলার জায়গা গুলি নিয়মিত নজরদারি চালানো এবং সাফাই করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্কুল শিক্ষা দফতর, সমাজ কল্যাণ দফতর,পুলিশ এবং আবাসন দফতরকে সচেতনতা প্রচারের কাজে সামিল হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও গ্রামের অঙ্গনওয়াড়ি স্বনির্ভর গোষ্ঠীর স দস্য নাগর িক কমিটির সদস্যদেরও সচেতনতা প্রচারের কাজে সামিল করা হবে। রাজ্য সরকার ২৯ শে মে থেকে ৪ জুন পর্যন্ত ডেঙ্গু সপ্তাহ পালন করবে এবং এর আওতায় রাজ্যজুড়ে বিশেষ সাফাই অভিযান চালানো হবে বলেও আজকের বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।