এই মুহূর্তে জেলা

বকেয়া বেতন এবং কাজে পুনর্নিয়োগের দাবিতে ফের আন্দোলনে বার্নের কর্মীরা।


হাওড়া, ৩ জানুয়ারি:- হাওড়ায় বার্ন স্ট্যান্ডার্ড কোম্পানির কাজ হারানো কর্মীরা ফের আন্দোলন শুরু করেছেন। তাদের দাবি অবিলম্বে গত চার বছর ধরে তাদের বকেয়া বেতন দিতে হবে এবং তাদের কাজে পুনর্নিয়োগ করতে হবে। এই দাবিতে তারা ফের আন্দোলন শুরু করেছেন। প্রায় ৫৭ জন ছাঁটাই হওয়া কর্মীদের এই আন্দোলন শুরু হয়েছে। তাঁদের অভিযোগ, ২০১০ থেকে রেল মন্ত্রকের অধীনে তাঁদের নেওয়া হয়। কিন্তু, আচমকাই চার বছর আগে তাঁদের বলা হয় যে রেল থেকে ক্লোজার নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এরপরই তাঁদের কাজ থেকে বসিয়ে দেওয়া হয়। যদিও এদের অভিযোগ তাঁরা রেল মন্ত্রকের অধীনে থাকা সত্ত্বেও দীর্ঘদিন ধরে রেলের পে-স্কেল অনুযায়ী বেতন তারা পাননি।

সুযোগ সুবিধা তারা পাননি। এর প্রতিবাদেই এবং চাকরিতে পুনর্নিয়োগের দাবিতেই তাঁদের আন্দোলন শুরু হয়েছে। এদিন এক আন্দোলনকারী বলেন, ২০১০ থেকে আমরা মিনিস্ট্রি অফ রেলের আন্ডারে কর্মী। তার আগে আমরা ছিলাম মিনিস্ট্রি অফ হেভি ইন্ড্রাস্ট্রির আন্ডারে। এখনও পর্যন্ত রেলের কোনওরকম সুযোগ সুবিধা, পে-স্কেল, এবং পে-সাপোর্ট আমাদের দেওয়া হয়নি। উপরন্তু ৪ এপ্রিল ২০১৮ সালের ক্যাবিনেট সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কোম্পানি বন্ধ হয়ে গিয়েছে। ২০১৮ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর আমাদের ছাঁটাই করা হয়। এরপর ছাঁটাইয়ের পর ২৪ ডিসেম্বর ২০১৯শে আবার পুনর্নিয়োগ করা হয়। ওই দিনেই আবার ছাঁটাই করে দেওয়া হয়। এখন চাইছি আমাদের পুনর্নিয়োগ করা হোক।

এর পাশাপাশি রেলের পে-স্কেল সহ রেলের যে যে সুযোগ পাওয়া উচিৎ তা দেওয়া হোক। ৫৭ জন আমরা স্থায়ী কর্মচারী। সমস্ত অর্ডার আমাদের পক্ষে থাকা সত্ত্বেও আমাদের একবার চাকরি দিচ্ছে এবং আবার চাকরি নিচ্ছে। এখানে ভুয়ো ক্লোজারের সিদ্ধান্তের নোটিশ মেরে এই জিনিস করা হচ্ছে। আরেক কর্মী স্বপন মান্না বলেন, আমাদের ৪ বছরের বেতন বাকি। আমাদের দাবি এই বেতন দিতে হবে, পুনর্নিয়োগ করতে হবে। আমাদের ধারণা এই কাজ লোকাল ম্যানেজমেন্ট করেছে। কর্মীদের চোখে ধুলো দিয়ে এই কাজ করা হয়েছে।