এই মুহূর্তে জেলা

কেন্দ্রের অসহযোগিতা , রাজ্যের কোষাগারে ঘাটতির মধ্যেই রাজ্যবাসীকে নতুন উপহার মুখ্যমন্ত্রীর।


পূর্ব মেদিনীপুর, ৬ অক্টোবর:- কেন্দ্রের অসহযোগিতা, রাজ্যের কোষাগারে ঘাটতির মধ্যেই উৎসব মরসুমের আগেই রাজ্যবাসীকে নতুন উপহার তুলে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার সৈকত শহর দিঘায় বেড়াতে আসা পর্যটকেরা এবার নতুন ডেস্টিনেশান পেলেন। রবিবার দিঘার সৈকতে বনদফতরের উদ্যোগে প্রায় দু’কোটি টাকা ব্যয়ে ওশিয়ানা ঘাট থেকে যাত্রানালা পর্যন্ত প্রায় দীর্ঘ এক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিনোদনমূলক পার্ক এর উদ্বোধন করলেন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দোপাধ্যায়।

এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রামনগর এর বিধায়ক অখিল গিরি, রামনগর – ১ পঞ্চায়েত সমিতির জন স্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ সুশান্ত পাত্র, বনদফতর এর আধিকারিক প্রমুখ। এদিন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দোপাধ্যায় বলেন, “মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বসার পরেই সৈকত শহরের চারিদিকটা দ্রুততার সাথে বদলেছে। এখন আর শুধু এই রাজ্য নয়,দেশের বিভিন্ন প্রান্ত এমনকি বিদেশী পর্যটকেরাও কম বেশী ভিড় করছেন দিঘায়। পর্যটন শিল্পে জোয়ার এসেছে। তবে আরো কিছু কাজ আছে। বনমন্ত্রী বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্ন দিঘাকে বিশ্ব পর্যটন মানচিত্রে তুলে আনা।

তাই তার পরিকাঠামো উন্নয়ন-সৌন্দর্যায়নে জোর দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রতিদিন মান্দারমনি-তাজপুর-শংকরপুর-দিঘা প্রমুখ সৈকত শহরে সরকারের কোনও না কোনও উন্নয়নী কর্মকান্ড চলছে।” আগামিদিনে দিঘা একটা অন্য রূপ পাবে বলে আশাবাদী রাজ্যের বনমন্ত্রী। অন্যদিকে, লম্বা ছুটি। দীর্ঘ কয়েকমাস লকডাউনে বন্দি জীবন কাটিয়েছে বাঙালি। যদিও ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে পরিস্থিতি। ইতিমধ্যে দিঘা, মন্দারমণি খুলে দেওয়া হয়েছে। ধীরে ধীরে মানুষজনও সেখানে ভিড় জমাতে শুরু করেছে। লম্বা এই ইউকেন্ডে ব্যাপক ভিড় লক্ষ্য করা যায় মন্দারমনি, দিঘাতে। একেবারে শুক্র, শনি এবং রবিবার লম্বা ছুটিতে সাধারণ মানুষজন ভিড় জমিয়েছে এই সমস্ত সৈকত শহরে। করোনাকে উপেক্ষা করেই মানুষজন প্রাণ ভরে নিঃশ্বাস নিয়েছে।